এটিকে এফসি-র সঙ্গে আরও এক বছরের চুক্তি রয় কৃষ্ণার

কলকাতার ফুটবলপ্রেমীদের জন্য সুখবর। এটিকে এফসি-র সেরা তারকা রয় কৃষ্ণা ঘোষণা করে দিলেন, আসন্ন মরশুমেও তিনি হিরো ইন্ডিয়ান সুপার লিগে কলকাতার দল এটিকে এফসি-র হয়ে খেলতে চলেছেন। শুক্রবার সকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় ফিজির গোলমেশিন তাঁর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেন ভক্তদের উদ্দেশ্যে। একই সঙ্গে এটিকে এফসি-ও তাদের টুইটার হ্যান্ডলে এই খবর সরকারি ভাবে জানিয়ে দেয়।

শুক্রবার সকালে এটিকে-র টুইট বার্তায় ছিল রয়ের বক্তব্যও। তিনি বলেছেন, “আমার ক্লাবের সঙ্গে ফের চুক্তিবদ্ধ হতে পেরে খুবই ভাল লাগছে। ২০১৯-২০ মরশুমে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে চ্যাম্পিয়ন টিমে থাকা নিয়ে আমার মনে আর কোনও প্রশ্নই নেই। কলকাতায় প্রথম বছর মাঠে ও মাঠের বাইরে আমার দারুন কেটেছে। সতীর্থ খেলোয়াড়, কর্তা থেকে শুরু করে কলকাতার সমর্থকেরা সবার কাছ থেকে এত ভালবাসা পেয়েছি যে, মনে হয়েছে, নিজের পরিবারেই রয়েছি। এটাই ছিল আমার প্রথম ভারত সফর। দেশ থেকে অনেক দূরে হলেও এখানে এসে সময়টা বেশ উপভোগ করেছি। কলকাতা শহরটার মতোই এখানকার মানুষগুলোও অসাধারণ। এখন মনে হয়, এটাই আমার সেকেন্ড হোম”।

এটিকে-র সঙ্গে আরও এক বছরের চুক্তির কথা ঘোষণা করে তিনি বলেন, “ভারতে ফেরার অপেক্ষায় রয়েছি। ভারতে ফিরে কোচ আন্তোনিওর (লোপেজ হাবাস) তত্ত্বাবধানে অনুশীলনে নামার জন্যও মুখিয়ে আছি। দলের সতীর্থদের সঙ্গে কলকাতায় আবার দেখা হবে ভেবে খুব ভাল লাগছে। এটিকে ও মোহনবাগানের মিলনের খবরটাও আমার কাছে বেশ রোমাঞ্চকর। আশা করি ভারতে পৌঁছনোর বিমান ঠিক সময়ে চালু হয়ে যাবে ও ঠিক সময়ে আমরা মরশুমের প্রস্তুতি শুরু করতে পারব”।

গত মরশুমে এটিকে এফসি-র আইএসএল খেতাব জয়ে রয় কৃষ্ণার অবদান ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সারা লিগে দলের ৩৩টি গোলের মধ্যে ১৫টিই ছিল ফিজির অলিম্পিক দলের সদস্যের। ফরোয়ার্ড লাইনে অস্ট্রেলিয়া থেকে আসা ডেভিড উইলিয়ামসের সঙ্গে দুর্দান্ত বোঝাপড়া গড়ে উঠেছিল তাঁর। কারণ, অস্ট্রেলিয়ান লিগেও পরষ্পরের সতীর্থ ছিলেন রয় ও ডেভিড। সেই বোঝাপড়া হিরো আইএসএলেও দারুণ ভাবে কাজে লাগে। এটিকে এফসি যখনই কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে, তখনই ত্রাতা হয়ে উঠেছেন এই ফরোয়ার্ড জুটি। এ বছরেও তিন বারের হিরো আইএসএল চ্যাম্পিয়নদের নতুন রেকর্ড গড়তে সাহায্য করবেন রয়, তাঁর কাছে তেমনই প্রত্যাশা থাকবে সমর্থকদের। এ বার যেহেতু মোহনবাগানের সমর্থকেরাও তাঁর হয়ে গলা ফাটাবেন, তাই তাঁর ওপর প্রত্যাশার চাপটা হয়তো একটু বেশিই থাকবে। এএফসি কাপেও তাঁর পারফরম্যান্সের দিকেই তাকিয়ে থাকবে দল।       

Your Comments

Your Comments