প্রথম সেমিফাইনালে সাগরপাড়ের দুই দলের কোচেরই মূলমন্ত্র এক, উপভোগ করো

হিরো আইএসএলের সাতবারের মধ্যে ছ’বার প্লে অফে উঠেছে তারা। দু’বার ফাইনালে উঠেও হার। যাদের সম্পর্কে এই কথাগুলো লেখা হল, সেই এফসি গোয়া যে একবারও চ্যাম্পিয়নের ট্রফি হাতে তুলতে পারেনি, এটা জেনে অনেকেই অবাক হতে পারেন। কিন্তু অবাক করার মতো হলেও এটাই সত্যি। এ বার আরও একবার চ্যাম্পিয়নরে খেতাব পাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে শুক্রবার তাদের ছ’নম্বর অভিযান শুরু করছে এফসি গোয়া। প্রতিপক্ষ প্রতিবেশী শহরের মুম্বই সিটি এফসি। যাকে অনায়াসে বলা যায় ‘ওয়েস্টার্ন ডার্বি’।

শুক্রবার ফতোরদা স্টেডিয়ামে চলতি হিরো আইএসএলে প্রথম সেমিফাইনালের প্রথম লেগে যে এক জমজমাট লড়াই দেখা যেতে পারে, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। টানা চতুর্থবার সেমিফাইনালে ওঠা গোয়ার দল এ বার ট্রফি জেতার ব্যাপারে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। কারণ, দুই দলেরই গোল করার লোকের অভাব নেই। এ বারের লিগে যে ক্লাবগুলি সবচেয়ে বেশি গোল দিয়েছে, তাদের মধ্যে মুম্বই এক নম্বরে আর দুই নম্বরে এই এফসি গোয়া এবং নর্থইস্ট ইউনাইটেড এফসি। তাই শুক্রবারের ম্যাচে গোলের ফোয়ারা দেখা গেলেও অবাক হবেন না।

গত ১৩টি ম্যাচের একটিতেও হারেনি স্প্যানিশ কোচ হুয়ান ফেরান্দোর দল। এমন নজির এবারের লিগে আরও কোনও দল গড়তে পারেনি। কিন্তু তাই বলে মুম্বই সিটি এফসি-কে হারানো সহজ হবে, তা ভুলেও ভাবতে নারাজ কোচ। বৃহস্পতিবার তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা যদি খেলাটা উপভোগ করতে পারি, তা হলে সাফল্য আসতে পারে। কখনও কখনও দুই দলই জেতার জন্য মরিয়া হয়ে গেলে চাপ অত্যাধিক হয়ে যায়। কিন্তু আমাদের কাছে ব্যাপারটা সে রকম নয়। আমার দলের ছেলেরা কী ভাবে খেলতে পছন্দ করবে, সেটাই আমার কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। যখন আমাদের ছেলেরা নিজেদের স্বাভাবিক খেলা খেলতে পারে না, তখনই আমার দুশ্চিন্তা বেড়ে যায়। কিন্তু এই ম্যাচে আমাদের সব ফুটবলারই নিজেদের স্টাইলে ফুটবল খেলতে চায়। এটাই ভাল”। কিন্তু শুক্রবারের ম্যাচে এফসি গোয়ার একটা বড় সমস্যা হল ইভান গঞ্জালেস ও আলবার্তো নগুয়েরার খেলতে না পারা। কার্ড সমস্যায় তাঁরা খেলতে পারবেন না।

বল পজেশনের দিক থেকে গোয়ার দল (৫৮%) সবার ওপরে থাকলেও মুম্বই সিটি এফসি (৫৭%) খুব একটা পিছিয়ে নেই।  এই ব্যাপারে দুই দলই প্রায় সমানে সমানে। বল পজেশন বাড়িয়ে রেখেই আর এক স্প্যানিশ কোচ সের্খিও লোবেরার দল ৩৫টি গোল করেছে। এফসি গোয়ার গোলসংখ্যা সেখানে ৩১। লিগপর্বে প্রথমবার মুম্বই সিটি এফসি ১-০ জিতলেও পরের বার ৩-৩ ড্র হয়। অর্থাৎ এ বার এখন পর্যন্ত তাদের হারাতে পারেনি এফসি গোয়া।

গতবার যে দলের কোচ ছিলেন, যাদের লিগসেরা হওয়ার দোরগোড়া পর্যন্ত পৌঁছে দিয়ে দায়িত্ব ছেড়ে চলে যান, সেই লোবেরা এই ম্যাচের আগে বললেন, “মুম্বই সিটি এফসি-কে যখন অন্য কোনও দল ফেভারিট বলে, তখন বেশ ভাল লাগে। কারণ, আমরা ওদের থেকে ভাল দল, নিশ্চয়ই এটাই ভেবেই এ কথা বলে ওরা। এটা আমাদের পক্ষে ভাল। এই চাপটা আমরা পছন্দ করি। কিন্তু ওদের ধারণাটা যে ঠিক, সেটা মাঠেই প্রমাণ করতে হবে”। চার ম্যাচের নির্বাসন কাটিয়ে এই ম্যাচে ফিরছেন তাদের সেরা তারকা হুগো বুমৌস। তবে অময় রানাওড়ে কার্ড সমস্যায় খেলতে পারবেন না। 

দুই কোচের মধ্যে একটা জায়গায় একটা অদ্ভূত মিল দেখা গেল। ফেরান্দোর মতো লোবেরাও চান, তাঁর দলের ছেলেরা খেলাটা উপভোগ করুক। তিনি বলেন, “এটা একটা বিশেষ ম্যাচ। আমাদের স্মার্ট এবং ১৮০ মিনিট খেলার জন্য তৈরি হতে হবে। কাল তার প্রথম ধাপ। দারুন লাগছে। আশা করি চ্যালেঞ্জটা আমরা উপভোগ করতে পারব”।  

Your Comments

Your Comments