রক্ষণ সামলাতে অস্ট্রেলিয়া থেকে ব্রেন্ডান হ্যামিলকে উড়িয়ে আনছে এটিকে মোহনবাগান

আগামী দুই মরশুম এটিকে মোহনবাগানের রক্ষণ সামলানোর জন্য অস্ট্রেলিয়া থেকে উড়ে আসছেন ২৯ বছর বয়সি ডিফেন্ডার ব্রেন্ডান হ্যামিল। অর্থাৎ, অস্ট্রেলিয়ান লিগের এই তারকা ফুটবলারকে এ বার হিরো আইএসএলে খেলতে দেখা যাবে সবুজ-মেরুন জার্সি গায়ে।

আসন্ন এএফসি কাপ নক আউট পর্বের জন্য এশীয় কোটার একজন ফুটবলারের সন্ধানে ছিলেন এটিকে মোহনবাগানের স্প্যানিশ কোচ হুয়ান ফেরান্দো। সে জন্যই দলের চতুর্থ বিদেশি হিসেবে হ্যামিলকে নিয়ে আসা হচ্ছে। দক্ষিণ কোরিয়া ও অস্ট্রেলিয়ার ক্লাব ফুটবলে সাফল্যের পরে এ বার তিনি ভারতে আসছেন ফুটবল জীবনের আরও একটি অধ্যায় শুরু করার জন্য।

ভারতে ফুটবল কেরিয়ারের নতুন অধ্যায় শুরু করা নিয়ে হ্যামিল বলেন, “ভারতীয় ফুটবল নিয়ে যতদূর জেনেছি, এই ক্লাবের একটা বিশাল ঐতিহ্য আছে। তাই অন্য ক্লাবের প্রস্তাব থাকলেও এই ক্লাবই আমাকে বেশি আকর্ষণ করেছে। ভারতে এসে এই ঐতিহ্যবাহী ক্লাবকে সাফল্য এনে দেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছি। শুনেছি কলকাতা ফুটবলপ্রিয় শহর। এই ক্লাবের কোটি কোটি সমর্থক রয়েছে। তাঁদের আনন্দ দেওয়াই হবে আমার লক্ষ্য”। 

রক্ষণ সামলানোই তাঁর প্রধান কাজ হলেও পাশাপাশি আক্রমণেও দক্ষ হ্যামিল। পাসিংয়েও যথেষ্ট ভাল বলে শোনা যায়। ‘এ’ লিগে গত মরশুমে তাঁর তিনটি গোল রয়েছে। মেলবোর্ন ভিকট্রির হয়ে খেলার আগে অস্ট্রেলিয়ার ক্লাব মেলবোর্ন হার্ট, ওয়েস্টার্ন সিডনি ওয়ান্ডারার্স, ওয়েস্টার্ন ইউনাইটেড ক্লাবের নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড় ছিলেন ব্রেন্ডান হ্যামিল। কোরিয়ার লিগেও খেলেছেন সেওঙনাম ও গাঙ্গুওনের হয়ে।

মহাদেশের সবচেয়ে বড় ক্লাব ফুটবলের আসর এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সেরার খেতাব জিতেছিলেন ওয়েস্টার্ন সিডনি ওয়ান্ডারার্সের হয়ে। অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় আন্তঃক্লাব নক আউট টুর্নামেন্ট এফএফএ কাপেও চ্যাম্পিয়ন হন মেলবোর্ন ভিকট্রির সঙ্গে। অস্ট্রেলিয়ার অনূর্ধ্ব ১৬ ও অনূর্ধ্ব ১৯ দলের হয়েও খেলেছেন তিনি। ফলে অনেক অভিজ্ঞতার ঝুলি নিয়ে ভারতে আসছেন হ্যামিল।

তিনি দলে যোগ দেওয়ায় অনেকটা নিশ্চিন্ত হতে পারবেন হুয়ান ফেরান্দো। সম্প্রতি এএফসি কাপে খেলার সময় স্প্যানিশ ডিফেন্ডার তিরি গুরুতর চোট পাওয়ায় তাঁর জায়গা নিয়ে যে সমস্যা দেখা দিয়েছিল, তা হ্যামিল এলে মিটে যাবে বলেই ধারণা তাঁর। তিরির চোট এতটাই গুরুতর যে, তাঁকে সম্ভবত আগামী মরশুমে নাও পাওয়া যেতে পারে।

“হ্যামিল শুধু রক্ষণে নির্ভরতা জোগায় না, পিছন থেকে খেলাটা তৈরিও করতে পারে”, নতুন এই তারকাকে নিয়ে বলেছেন ফেরান্দো। তাঁর মতে, “অস্ট্রেলিয়ার লিগে ওর খেলা আমি দেখেছি। ও আমাদের দলে যোগ দিলে আমাদের রক্ষণ কঠিন সময়ে ভরসা পাবে।”

Your Comments

Your Comments